চাঁদপুর সড়কে নির্মাণ সামগ্রী রেখে : ঘটছে দুর্ঘটনা

চাঁদপুর সড়কে নির্মাণ সামগ্রী রেখে : ঘটছে দুর্ঘটনা

চাঁদপুর প্রতিনিধি

একাধিক দফতর থেকে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও চাঁদপুর শহরে প্রধান সড়কে বিভিন্ন নির্মাণ সামগ্রী ফেলে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে বহুতল ভবন নির্মান করছেন কিছু অসাধু ভবন মালিকরা।
গত এক বছরের ও বেশি সময় ধরে দেখা গেছে শহরের একমাত্র বাইপাস সড়ক হিসেবে পরিচিত বঙ্গবন্ধু সড়কের ওপর বিভিন্ন নির্মান সামগ্রী এলোপাথাড়ি ভাবে সড়কে ফেলে বহুতল ভবন নির্মাণ করছেন ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আবু সাহেদ সরকার।
একই সাথে ওই এলাকায় নাম না জানা আরো অনেক ভবন মালিকগন প্রধান সড়কের ওপর ইট, বালু, কংক্রিটসহ তাদের ভবন নির্মানের বিভিন্ন সামগ্রী ফেলে রেখে ভবন তৈরির কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। সড়কের ওপর এসব সামগ্রী ফেলে রাখার কারনে একদিকে যেমন যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে অন্যদিকে প্রায়ই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা।
গত ৫/৬ দিন ধরে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে বঙ্গবন্ধু সড়কের হাজী বাড়ি জামে মসজিদ সংলগ্ন স্থানে আবু সাহেদ সরকার তার বহুতল ভবন নির্মানের জন্য ইট, বালু সড়কের অধিকাংশ জায়গা জুড়ে ফেলে রাখেন। যার কারনে ওই সড়ক দিয়ে বিভিন্ন ছোট বড় যানবাহন চলাচল করতে গিয়ে অনেক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, সড়কের অধিকাংশ জায়গা জুড়ে এসব নির্মান সামগ্রী রাখার কারনে অনেক সময় দীর্ঘ যানজটের ও সৃষ্টি হয়। এমনকি সড়কের ওপর বালুর স্তুপ পড়ে থাকার কারণে সিএনজি স্কুটার ও মোটর সাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহন স্লিপ খেয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে।
গত ৯ সেপ্টেম্বর রাতেও সাহেদ সরকারের রাখা বালিতে স্লিপ খেয়ে পড়ে দু’ মোটর সাইকেল আরোহী গুরুতর আহত হয়েছেন।
এ ব্যাপারে ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আবু সাহেদ সরকার জানান, বালিগুলো যখন ফেলানো হয়েছে আমি জানি না। আমি যখন রাস্তায় মালামাল রাখি তখন লেবার (শ্রমিক) দিয়ে সেগুলো ভেতরে নিয়ে যাই। আর ওইদিন রাতে যে দুর্ঘটনা ঘটেছে আমি শুনেছি, সেজন্য আমি লেবারদের সাথে অনেক রাগারাগি করেছি।’
তিনি আরো বলেন, ‘আমার যে বালি গুলো ছিলো সেগুলো ভেতরে নিয়ে গেছি। এর আগে সেসব বালি ছিলো সেগুলো আমার নয়।’
এছাড়া গত কয়েক মাসে সরজমিনে দেখা গেছে, চাঁদপুর শহরের যানবাহন চলাচলের ও জনগুরুত্বপূর্ন প্রধান সড়কগুলো এখন নতুন ভবন নির্মাণাধীন মালিকদের দখলে। দীর্ঘদিন ধরে শহরের অধিকাংশ সড়কগুলোর পাশে নতুন ভবন তৈরির নির্মান সামগ্রী রেখে কতিপয় বাড়িওয়ালারা তাদের দখলে নিয়ে নিয়েছে। চাঁদপুর শহরের বিভিন্ন পাড়া, মহল্লায় একের পর এক গড়ে উঠছে ছোট বড় অসংখ্য ভবন।
এসব ভবনের নির্মাণ কাজ করতে গিয়ে ইট, বালু, রড, সিমেন্ট, পাথর, কংক্রিট, কাঠ, বাঁশসহ বিভিন্ন নির্মাণ সামগ্রী রাস্তায় ফেলে রেখে যানবাহন ও পথচারীদের চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে।
তবে বিশেষ করে গত কয়েক বছর ধরে দেখা যায় চাঁদপুর শহরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সড়কের শ্রী শ্রী রাম কৃষ্ণ আশ্রম সংলগ্ন একটি বহুতল ভবন নির্মান কাজ করতে গিয়ে তারা শহরের এ ব্যস্ততম সড়কের দু’পাশে নির্মাণ সামগ্রী ফেলে রেখে তাদের নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। সড়কের দু’পাশে এসব নির্মান সামগ্রী ফেলে রাখার কারনে প্রতিদিনই চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন যানবাহন চালক ও পথচারীরা।
দেখা গেছে এসব সামগ্রী রাখার কারণে প্রতিদিনই সড়কের ওই স্থান হতে ছায়াবাণী মোড় এবং মিশন রোডের মোড় পর্যন্ত ভয়াবহ যানজট লেগে থাকতো। এর পাশাপাশি স্কুল কলেজ পড়–য়া ছাত্র- ছাত্রী ও পথচারীরা ঠিকমতো চলাফেরা করতে পারতো না।
শুধু শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সড়ক আর বঙ্গবন্ধু সড়কই নয় এর পাশাপাশি শহরের বেশির ভাগ পাড়া মহল্লার চিত্রও একইরকম । এরমধ্যে হাজী মহসীন রোড , নতুন বাজার, মরহুম আঃ করিম পাটওয়ারী সড়ক, পাল পাড়া, আলীম পাড়া, গুয়াখোলা, নাজির পাড়া একাধিক পাড়া মহল্লার সড়কগুলিতে যত্রতত্র ভবনের নির্মাণ সামগ্রী রেখে তারা তাদের ইচ্ছেমতো সড়কের পাশে নির্মাণ সামগ্রী ফেলে রেখে দীর্ঘদিন ধরে বাড়ির কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।
এমন দুর্ভোগ থেকে রেহাই পেতে ওইসব ভবন মালিকদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পৌর মেয়র ও প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ প্রয়োজন বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD