টি আই প্রবির সরকারের হয়রানীর শিকার গাড়ির মালিক সহ চালকরা

টি আই প্রবির সরকারের হয়রানীর শিকার গাড়ির মালিক সহ চালকরা

এস আর শাহ আলম

চাঁদপুর জেলার কচুয়া ও শাহরাস্তি উপজেলার দুই থানার দায়িত্ব প্রাপ্ত ট্রাফিক বিভাগের টি আই প্রবির সরকারের বিরুদ্বে অভিযোগ উঠেছে, তিনি প্রতি সি এন জি প্রতি মাসে ২৫০ টাকা করে মাসিক মাসোহারা আদায় করেন যাহা আমাদের কাছে চালকদের অভিযোগটি ভিডিও রেকট রয়েছে,নাম প্রকাশে অনিহা জানিয়ে অশংখ্য দুই থানার গাড়ির মালিক সহ চালকরা হয়রানীর শিকার হচ্ছে বলে গোপন সুত্রে বেরিয়ে আসে, অভিযোগের বৃত্বিত্বে জানা যায় টি আই প্রবিরের চাহিদা পূরণ না করতে পারলে তিনি সি এন জি পিকাপ সহ ট্রাক আটকিয়ে মামলা করে দিয়ে হয়রানী করছে,তাছাড়া তিনি নিজের ইচ্ছে মত যখন তখন কচুয়া সাচার রোড মুখে, কালিপাড়া এলাকায় অভিযানের নাম করে সি এন জি সহ পিকাপ গাড়ি গুলি দার করিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র দেখার নাম করে ঘন্টার পর ঘন্টা দার করিয়ে রাখে, এতে করে টি আই হয়রানীর শিকার যাত্রী সাধারন সহ নিত্য প্রয়োজনীয় বহন কারী গাড়ির মালিক সহ ব্যবসায়িরা হচ্ছে বলে যাত্রী সাধারন বলেন, আরো অভিযোগে আসে যে তিনি প্রায় ৪-৫ শ নাম্বার বিহিন সি এন জি থেকে প্রতি মাসে আড়াই শ টাকা করে মাসোহারা নিচ্ছেন, অথচ টি আইর দায়ের করা অহেতুক মামলার কারনে অভিযোগ কারিরা আমাদের কাছে বললে ও নাম না প্রকাশ করার জর্ন বার বার অনুরোধ করেছেন, যার কারনে অভিযোগ কারিদের নাম প্রকাশ না করা হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃ পক্ষ গোপনে তদন্ত করলে অভিযোগের সত্যতা বেরিয়ে আসবে বলে সচেতন মহল মনে করেন,এদিকে বুধ বার কালিয়া পাড়া এলাকায় টি আই মাল বহন কারি একটি পিকাপ গাড়ি আটক করে, মালিক তার আটকের কারন জানতে চাইলে তিনি বলেন চালক নাকি ফোনে টি আই কে গালমন্দ করেছে তবে কি কারনে একজন গাড়ি চালক তাকে গাল মন্দ করেছে তাহা তিনি প্রকাশ না করলে ও নিজের পোষাক আর পদমর্যাদার ক্ষমতার অপব্যবহার করে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্দ মাল বোঝাই কৃত পিকাপ গাড়িটি আটক করে রাখে,দুপুরের সময় টি আই কে গাড়ির মালিক সহ কয়েকজন তাকে বলে গাড়ির কাগজ পত্র সঠিক না থাকলে আপনি মামলা করুন সরকার রাজ্বশ্ব খাতে আদায় হবে, কিন্তু তিনি নিজ ক্ষমতার অপব্যবহার করে সারা দিন নাটকীয় রুপ ধারন করেছিলো অবৈধ টাকা উপার্জনের জন্য তাহা কোন মির্থ্যে সন্দেহ নয়,কারন তার কয়েক মাসের দুই থানার দায়িত্বে থাকা অবস্হায় এমন নজর বিহিন ঘটনা অনেক করেছে বলে সর্ত্রে আসে, যেমন সি এন জি আটক করে বৈধতার নাম করে ৫-১০০০ টাকা দাবী, কোন মালিক বা চালক তার টাকার চাহিদা পূরন না করতে পারলে ৫-২০ হাজার টাকার মামলা দায়ের করে বাদীর হাতে মামলার কপি ধরিয়ে দেন,ঠিক একই কেটা করি মাসিক মাসোহারা করা সি এন জি গুলি মামলার হয়রানী থেকে রক্ষা পেলেও, মাসিক মাসোহারা বিহিন গাড়ি গুলি হচ্ছে হয়রানীর শিকার,এমন অবস্হ্যায় অভিযুক্ত কারি টি আইর মোবাইল নাম্বারটি কোথায় না পাবায় যোগাযোগ করা সম্বব হয়নি বলে টি আইর মতামত প্রকাশ করা গেলো না,চাঁদপুর জেলায় আরো অনেক দায়িত্ব প্রাপ্ত টি আই রয়েছে কিন্তু প্রবির সরকার টি আইর বিরুদ্বে যেমন অভিযোগ ভোক্ত ভুগি মহল জুরে উঠেছে তাহা আর কারো বিরুদ্বে নেই বলে অনেকেই বলেন,আর তাই এ বিষয়ে পুলিশ সুপার সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃ পক্ষের হস্হোক্ষেপ কামনা করেছেন সচেতন মহল।:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD