চাঁদপুর সরকারি হাসপাতালে ২ u শিশু রোগী ভর্তি

চাঁদপুর সরকারি হাসপাতালে ২ u শিশু রোগী ভর্তি

ডেক্স রিপোট

তীব্র তাপদাহে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে আড়াই’শ শয্যা বিশিষ্ট চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে গত ৪ ’দিনে প্রায় ২ শতাধিক শিশু রোগী ভর্তি হয়েছে।
শহর এবং জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আসা রোগীরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এসব রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে ডাক্তার ও নার্সরা।
গত ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে বুধবার ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ১৬ জন শিশুরোগী ভর্তি হয়েছে। আবহওয়া দুর্যোগের কারনে বিভিন্ন বয়সী শিশুরা নিউমোনিয়া , খিচুনী, পাতলা পায়খানা, জ্বর, সর্দি, কাশি, বমিসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ্য হওয়ার কারন বলে জানা গেছে। তবে এদের মধ্যে এক থেকে দু’মাস বয়সী শিশু রোগীর সংখ্যা বেশি বলে হাসপাতালের ডিউটিরত নার্সরা জানান।
১৯ সেপ্টেম্বর বুধবার দুপুরে সরকারি হাসপাতালের তৃতীয় তলার শিশু বিভাগে খবর নিয়ে জানাযায়, গত ১৬ সেপ্টেম্বর সারাদিনে সর্বমোট ৪১ জন শিশু রোগী ভর্তি হয়েছেন। ১৭ সেপ্টেম্বর ৩৯ জন, ১৮ সেপ্টেম্বর সারাদিনে ভর্তি হয়েছে ৩৭ জন এবং ১৯ সেপ্টেম্বর বুধবার দুপুর ৩ টা পর্যন্ত ২১ জন শিশু রোগী ভর্তি হয়েছেন বলে শিশু বিভাগের ডিউটিরত নার্সরা জানান। এদের মধ্যে বেশির ভাগ রোগীরই নিউমোনিয়া ও খিচনীর সমস্যা রয়েছে।
বুধবার দুপুরে সরকারি হাসপাতালের তৃতীয় তলার শিশু বিভাগে সরজমিনে গিয়ে দেখাযায় ওই বিভাগের নার্সদের রুমের সামনে ভিড় জমিয়ে চিকিৎসা সেবার জন্য অপেক্ষা করছে শিশু রোগীদের অভিবাবকরা।
হাসপাতালের শিশু বিভাগের সবক’টি বিছানা পূর্ন হয়ে মেঝেতে ও রোগীদের জন্য বিছানা পাতা হয়েছে। এসব শিশু রোগীরা প্রচন্ড গরম ও ঠান্ডা আবহাওয়ার কারনে নিউমোনিয়া, খিচনী, পাতলা পায়খানা, বমি, জ্বর, সর্দি, বমিসহ নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এছাড়াও অনেক শিশু রোগীকে অভিভাবকরা হাসপাতালে নিয়ে এসে ডাক্তার দেখিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা নিয়ে চলে যান।
খবর নিয়ে জানাযায় চাঁদপুর জেলা শহরে আবহাওয়া পরিবর্তনের কারনে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে গত ৫ দিনে হাসপাতালে প্রায় শতাধিক শিশু রোগী ভর্তি হয়েছে।
এ ব্যাপারে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ( আর এম ও ) ডাঃ মোঃ আসিবুল আহসান চৌধুরীর সাথে আলাপকালে তিনি বলেন আবহাওয়া পরিবর্তনের কারনে শিশুরা হঠাৎ পুষপুষ জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়ছে। এরমধ্যে নিউমেনিয়া, শ্বাসকষ্ট, পাতলা পায়খানা , সর্দি, কাশ, বমিসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ার কারনে শিশু রোগীর সংখ্যা বেড়ে গেছে। হঠাৎ প্রচন্ড গরম, আবার হালকা ঠান্ডা আবহাওয়ায় শিশুরা বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়ছে, এজন্য অভিভাবকদেরকেও সতর্ক থাকতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD