জাতীয় প্রেসক্লাবের নতুন কমিটির কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞা

জিটিবি নিউজ : জাতীয় প্রেসক্লাবের ২০১৫-১৬ মেয়াদে গঠিত নতুন কমিটির কার্যক্রমের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার বিচারপতি শরিফ উদ্দিন চাকলাদারের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ এ আদেশ দেন। জাতীয় প্রেসক্লাবের বিষয়ে ঢাকা জজ কোর্টের দেয়া এক আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিভিশন মামলা করলে শুনানি শেষে আদালত এ আদেশ দেয়।
গতকাল বুধবার প্রেসক্লাবের ২০১৪-১৫ মেয়াদের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমেদ এ রিভিশন আবেদনটি দায়ের করেন। আজ আদালতে আবেদনকারীর পক্ষে শুনানি করেন সুপ্রিমকোর্ট বারের সাবেক সভাপতি ও সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী।
জানতে চাইলে আবেদনকারী সৈয়দ আবদাল আহমেদ বলেন, ‘জাতীয় প্রেসক্লাবের ২০১৫-১৬ মেয়াদে গঠিত নতুন নির্বাহী কমিটির কার্যক্রমের ওপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আমি একটি রিভিশন আবেদন করি হাইকোর্টে। সে আবেদনের শুনানি শেষে আজ আদালত এ আদেশ জারি করেন।’
তিনি বলেন, ‘এই নতুন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সকল সদস্যের বিরুদ্ধে আমি আদালতে এ রিভিশন আবেদনটি করেছি।’এ বিষয়ে নতুন কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান বলেন, ‘আমরা এখনো এ ব্যাপারে কোনো কাজপত্র পাইনি। কাগজ হাতে পেলেই আমাদের পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে সে বিষয়ে বিস্তারিত জানাবো।’
এদিকে গত ১০ জুন জাতীয় প্রেসক্লাবের নতুন কমিটির কার্যক্রম কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না- সে মর্মে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন ঢাকার একটি বিশেষ আদালত
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উদেষ্টা মোসাদ্দেক আলী ফালুকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দানের পর মাত্র পৌনে একঘণ্টা পরে ওই আদেশ বাতিল করে তার জামিন প্রদান করেছেন ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালত।
বৃহস্পতিবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহরিয়ার মাহমুদ আদনান বেলা ১টার দিকে তার আদালতে আত্মসমর্পণকারী ফালুর জামিন আবেদন নাকচ করে জেলা হাজতে পাঠানোর আদেশ দিয়েছিলেন। এর প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা পরে আসামির (ফালু) আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া ওই বিচারকের কাছে তার পূর্ব আদেশটি পুনর্বিবেচনার আবেদন করেন। ওই আবেদনটি মঞ্জুর করে বিচারক ফালুকে জামিন প্রদান করেন।
গত ৩ ফেব্রুয়ারি নাশকতা, ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগে বাড্ডা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হুমায়ুন কবির মামলাটি দায়ের করেন। এরপর ২৭ জুন এ মামলায় মোসাদ্দেক আলী ফালুসহ ৬০ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন বাড্ডা থানার তদন্ত কর্মকর্তা আক্তারুজ্জামান সরকার।এ মামলায় পুলিশের প্রতিবেদন দাখিল পর্যন্ত জামিনে ছিলেন তিনি। জামিনের মেয়াদ শেষে বৃহস্পতিবার তিনি নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পন করে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD