পালবাজার ব্যবসায়ীদের মাঝে উৎসবের আমেজ

পালবাজার ব্যবসায়ীদের মাঝে উৎসবের আমেজ ::

চাঁদপুর প্রতিনিধি

চাঁদপুর শহরের ঐতিহ্যবাহী পালবাজারের ব্যবসায়ীদের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণে পৌর মেয়র আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ কথা দিয়ে কথা রেখেছেন। তিনি দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ায় বাজার ব্যবসায়ীদের মাঝে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।

ব্যবসায়ীদের দীর্ঘদিনের দাবি বাজারের সকল শ্রেণীর ব্যবসায়ীদের মধ্যে শৃঙ্খলা ও তাদের স্বার্থ রক্ষায় শক্তিশালী নির্বাচিত কমিটি গঠনের।

দাবিটি পূরণে তাঁরা নিজেরা অনেক চেষ্টা করেও গুটি কয়েক ব্যবসায়ীর কারণে সফল হতে পারেননি। যে কারণে দীর্ঘদিন ধরে বাজারের ব্যবসায়ীরা মেয়রের হস্তক্ষেপ চেয়ে আসছেন। বাজারটিতে বিশৃঙ্খল পরিবেশে ব্যবসায়ীরা যে যার মতো করে চলছেন। বিশেষ করে কাঁচামালের পাইকারী ব্যবসায়ীদের চরম বিশৃঙ্খলার বিষয়টি বারবার সংবাদ শিরোনাম হয়।

এ অবস্থায় চাঁদপুরের সুধী সমাজের পরিচিত ব্যক্তিত্ব, সাহিত্য একাডেমির মহাপরিচালক, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি, কমিউনিটি পুলিশ চাঁদপুর অঞ্চল-৫ সভাপতি, জেলা কমিউনিটি পুলিশের সহ-সভাপতি ও দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের প্রধান সম্পাদক কাজী শাহাদাত গত মাসে পৌর পরিষদের উদ্যোগে গঠিত নগর সমন্বয় ও উন্নয়ন কমিটির সভায় এ বাজারের বিষয়ে পৌর মেয়র আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বক্তব্য রাখেন। ঐ বক্তব্যের প্রেক্ষিতে তাৎক্ষণিক মেয়র পালবাজারের ব্যবসায়ীদের এ সমস্যা সমাধানে দ্রুত ব্যবস্থা নেবেন বলে আশ্বাস দেন।

এ আশ্বাসের এক সপ্তাহের মধ্যে বাজারের দোকান কর্মচারীদের সাপ্তাহিক ছুটির বিষয়ে সিদ্ধান্তহীনতা নিয়ে ব্যবসায়ীদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়। এক পর্যায়ে দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠে এ নিয়ে বেশ ক’টি সংবাদ প্রকাশিত হলে বিষয়টি টক অব দ্যা টাউনে পরিণত হয়।

সে প্রেক্ষিতে মেয়র আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ পালবাজার নিয়ে দ্রুত হস্তক্ষেপের সিদ্ধান্ত নেন। অবশেষে মেয়র তাঁর কথা রাখলেন। তিনি পালবাজারের সকল শ্রেণীর ব্যবসায়ীদেরকে ঐক্যবদ্ধ করে একটি প্লাটফর্ম করার জন্যে পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোঃ সিদ্দিকুর রহমান ঢালীকে আহ্বায়ক করে ৬ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করে দেন। এ কমিটির অপর সদস্যরা হলেন : প্যানেল মেয়র-২ হুমায়ূন কবির খান, কাউন্সিলর ফরিদা ইলিয়াছ, কাউন্সিলর শাহনাজ আলমগীর ও পৌরসভার প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ মফিজুল ইসলাম হাওলাদার। সদস্য সচিব করা হয়েছে পৌরসভার কর্মকর্তা মোঃ মুসলিম বেপারীকে।

মেয়রের স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত নির্দেশনায় অতি দ্রুত পালবাজারের প্রকৃত ব্যবসায়ীদের একটি তালিকা প্রস্তুত করার কথা বলা হয়। এ নির্দেশনা পাওয়ার পরপরই গঠিত কমিটির সকল সদস্য এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক আলোচনা না করলেও নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে নিয়েছেন কীভাবে তালিকা প্রস্তুত করবেন।

পৌর মেয়রের এ সদিচ্ছার কারণে ব্যবসায়ীদের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হচ্ছে। এ আলোকে পুরো বাজারের সকল শ্রেণীর ব্যবসায়ীদের মাঝে দেখা দিয়েছে উৎসবের আমেজ। গতকাল বাজার ঘুরে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা এ সংক্রান্ত সংবাদ শুনে খুশি। তাদের বক্তব্য হচ্ছে, মেয়র মহোদয় বরাবরের ন্যায় এবারও বাজার ব্যবসায়ীদের পাশে এসে দাঁড়ালেন। তারা বলছেন, মেয়র মহোদয় প্রকৃত ব্যবসায়ীদের তালিকা করে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটি করে দেবেন এমন প্রত্যাশা আমাদের।

এ বিষয়ে বাজারের ব্যবসায়ী মেসার্স জিএম মিজানুর রহমান ট্রেডার্সের মালিক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান গাজী বলেন, এ বাজারটি একটি ঐতিহ্যবাহী বাজার। কিন্তু লজ্জাজনক বিষয়, এ বাজারে ব্যবসায়ীদের কোনো কমিটি নেই। তিনি দুঃখ করে বলেন, অনেক বার চেষ্টা করেও কোনো সমাধান করতে পারিনি। মেয়র মহোদয়ের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। তিনি একটি পরিবেশ করে বাজার ব্যবসায়ীদের স্বার্থে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে একটি শক্তিশালী কমিটি উপহার দিবেন এ প্রত্যাশা করছি।

বাজারের ব্যবসায়ী মনিরুল ইসলাম, মধু পোদ্দার, সফর উদ্দিন মাস্টার ও আমিনুল ইসলাম ভুট্টোসহ বেশ ক’জন ব্যবসায়ীর সাথে কথা হলে তারাও বিষয়টিকে স্বাগত জানিয়ে এ বাজারের ব্যবসায়ীদের দীর্ঘ দিনের দাবি পূরণে সক্রিয় ভূমিকা রাখার আশ্বাস দেন।

গঠিত কমিটির সদস্য সচিব মোঃ মুসলিম বেপারীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, মেয়র মহোদয়ের নির্দেশনা আমরা পেয়েছি। আমরা আনুষ্ঠানিক কোনো আলোচনা করিনি। তবে প্রাথমিকভাবে নিজেদের সাথে নিজেদের প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে। চলতি মাসে এ বিষয়ে আমরা প্রাথমিক কাজগুলো শেষ করবো। আশা রাখি নতুন বছরের প্রথম সপ্তাহে চূড়ান্ত ভোটার তালিকা করে পরবতীতে মেয়র মহোদয়ের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD