জীবন যেখানে যেমন

জীবন যেখানে যেমন

নিউজ ডেক্স

করোনা পরিস্থিতি আজ-কাল- পরশু একদিন ঠিক থেমে যাবে। একদম বেমালুম ভুলে যাবো এই আতংকের দিনগুলোর কথা।
সাবধানতার শেষ নেই। মোটা মোটা চেয়ারের মোটা মোটা মাথার ও অভাব নেই। বাংলাদেশকে সম্ভাব্য বিপদের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য আমার ছোট মাথার কিছু ছোট চিন্তার কথা উপস্থাপন করলাম। সংশ্লিষ্ট মহল ভেবে দেখবেন।
১.
সরকার যেই মুহুর্তে বাংলাদেশকে করোনার ঝুকিমুক্ত ঘোষনা করবেন সেই দিন থেকে পরবর্তী ৬ মাস স্থল বন্দর, বিমানবন্দর সমুহের শুধুমাত্র কার্গো চ্যানেল খোলা রাখবেন।
২.
পৃথিবীর যে কোনো দেশ থেকে যাত্রি আসুক না কেনো ২১ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকার আগে যেনো তিনি সাধারন মানুষের সাথে মেলামেশার সুযোগ না পান। না হলে অবস্থা আবার ব্যাক করবে।
৩.
দেশের দুসময়ে যারা নিজেদের বিপদমুক্ত রাখতে দেশের বাইরে চলে গিয়েছিলো তাদের আগামী ৫ বছরের জন্য দেশে অবাঞ্চিত ঘোষনা করা দরকার এবং তারা যেনো দেশে ঢুকতে না পারে বর্ডারে ও ইমিগ্রেশন পুলিশকে সেই নির্দেশ দেওয়া জরুরি।
৪.
সব ধরনের দলীয় কার্যক্রম আগামী ১ বছর বন্ধ করে দিয়ে দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষকদের ( দলীয় ভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত ছাড়া) এবং মেধাবী শিক্ষার্থীদের দিয়ে করোনা পরবর্তী বাংলাদেশের রুপরেখা শীর্ষক রিসার্চ, সেমিনার এবং গবেষনা করার দরকার যার প্রতিটি রিপোর্ট মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌছাতে হবে।
৫.
সর্বস্তরের মানুষের আয়েশি জীবন ব্যবস্থার পরিবর্তন করতে হবে।
৬.
ত্রান চোর, দেশের সম্পদ লুটকারি যে দলের বা যত বড় হনু হোক না কেনো তা কঠোর হাতে দমন করতে হবে।
৭.
রাস্ট্রের প্রুচুর টাকা অনেক বাজে কাজে ব্যবহার হয় যার কোনো আউটপুট দেশের কল্যানে আসে না। দেশের উন্নয়নের স্বার্থে প্রতি মাসে মাত্র ১০ লাখ টাকা গবেষনা ফান্ডে দিতে হবে। এই টাকা ১০০০০ টাকা করে ১০০ জন মেধাবী ছাত্র ছাত্রী পাবে রাস্ট্রের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক গবেষনার কাজে। প্রতিযোগিতার মাধ্যমে এইসব মেধাবী ছাত্র ছাত্রী নির্বাচিত হবে ( দলীয় কোটায় নয়)
৮.
বেকার যুব সম্প্রদায়ের জন্য বিশেষ আর্থিক প্রনোদনা প্যাকেজ ঘোষনা করতে হবে। বিনা সুদে ১ বছরের জন্য প্রতিটি শিক্ষিত বেকারকে ১ লাখ টাকা লোন দিতে হবে ( পর্যাপ্ত মর্টগেজ নিশ্চিত সাপেক্ষে) যেন তারা জীবনের হতাশা কাটিয়ে আলোর মুখ দেখতে পায়। এদের নির্বাচিত করতে হবে তাদের পারিবারিক আর্থিক অবস্থান আর শিক্ষিত মেধাবী কি না সেই বিবেচনায়। কোনো অবস্থাতেই দলীয় বিবেচনায় নয়।
৯.
সরকারের একটা উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন রিভিউ কমিটির মাধ্যমে এই মুহুর্তে চলমান বা বিবেচনাধীন কম গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বাতিল করে দিয়ে বর্তমান পরিস্থিতির আলোকে গনমূখী মানুষ বাচানোর প্রকল্প গ্রহন করতে হবে।

উপরের সব চিন্তা ভাবনা একজন নাগরিক হিসেবে একান্তই আমার ব্যক্তিগত। সংশ্লিষ্ট যারা আছেন ভেবে দেখতে পারেন। এমনকি আমার ভাবনা গুলো কপি পেস্ট করে ফাইল আকারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে জমা দিয়ে বাহবা নিতে পারেন।
তবুও করেন। কিছু একটা করেন।
আমরা তাকিয়ে আছি।

ধন্যবাদ

খন্দকার শহীদুল ইসলাম শেখর।
ম্যানেজিং ডিরেক্টর, র‍্যাপিড পি আর।
ক্যাপস্টোন ফেলো, ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ।
info2rapidpr@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD