২০ হাজার টাকা দিলে হেলেপড়া বিদ্যুতের খুঁটি সচল হবে

২০ হাজার টাকা দিলে হেলেপড়া বিদ্যুতের খুঁটি সচল হবে

কবির হোসেন মিজি, চাঁদপুর

চাঁদপুর শহরের পালপাড়া এলাকায় ঝড়-বাতাসে হেলেপড়া বিদ্যুতের খুঁটি মেরামত করে সচল করতে পিডিবির লোকজন ২০ হাজার টাকা দাবি করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

যার কারণে কয়েক ঘণ্টা ধরে বিদ্যুৎবিহীন রয়েছে ওই এলাকার ৮০/৯০ টি পরিবার। যদিও গ্রাহকদের সেবা দেয়ার দায়িত্ব পিডিবি কর্তৃপক্ষের। কিন্তু পিডিবির লোকজন টাকা ছাড়া সেবা না দেয়ার এমন বহু অভিযোগ রয়েছে গ্রাহকদের কাছে।

ওই এলাকার একাধিক ব্যাক্তি জানায়, শুক্রবার সন্ধ্যায় হঠাৎ ঝড়-বাতাস শুরু হলে ওই সময় পালপাড়া আজিজ ব্রাদাসের আব্দুল আজিজ মিয়ার বাসার পেছনে থাকা একটি বিদ্যুতের খুঁটি হেলে পড়ে যায়। এসময় একটি টিনশেড ঘরের সাথে বিদ্যুতের তার লেগে শর্টসার্কিট হলে লক্ষ্মীর মা নামে ৬০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা আহত হন। পরে দুর্ঘটনা বিষয়টি স্থানীয়রা চাঁদপুর বিদ্যুত বিক্রয় ও বিতরণ কেন্দ্রে কল দিয়ে জানালে তারা তা সাথে সাথে বন্ধ করে দেন।

gif maker

এলাকাবাসির অভিযোগ ঘটনার পরদিন শনিবার পর্যন্ত হেলে পড়া ওই বিদ্যুতের খুঁটিটি মেরামত করা হয়নি। তাদের নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যাক্তির অভিযোগ, শনিবার সকালে পিডিবির, উপ-সহকারী প্রকৌশলী ও মামুন নামে দু’জন ব্যাক্তি বিদ্যুতের খুঁটিটি মেরামত করার করতে শ্রমিকদের দিবে বলে ২০ হাজার টাকা দাবি করেন। তাদের এমন দাবিতে নিরুপায় হয়েই ওই এলাকার সফিক মৃধা ও ছোবহান বেপারী ভোক্তভোগী নিজাম উদ্দিন, জলিল সরকার, আব্দুল আজিজ, আরব আলী, কালী কুন্ডু, রফিশ তালুকদার, সমীরন, মহাদেব সহ একাধিক লোকের কাছে ১ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন অংকের চাঁদা উঠাতে থাকেন। আর এমন চাঁদা তুলতে গেলে অনেকে তা দিতে অপরাগতা জানায়।

এমনকি সুমন বেপারী নামে একজন চাঁদা দিতে অনিহা জানালে ছোবহান বেপারীর ছেলে জনির সাথে বাকবিতন্ডা সৃষ্টি হয়। আবার অধিকাংশ লোকই দ্রুত বিদ্যুৎ পেতে বাধ্য হয়েই সে চাঁদা দিয়েছেন।

এলাকার লোকজন আরো জানায়, যদিও গ্রাহকদের সেবা দেওয়া পিডিবি কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব কিন্তু পিডিবির কিছু অসৎ লোকের এমন চাঁদা দাবির কারণে দ্রুত সেই সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বিদ্যুৎ গ্রাহকরা।

অন্যদিকে পিডিবির ও বদনাম ছড়াচ্ছে এসব অসৎ কর্মচারীরা। তাই তদন্ত সাপেক্ষে এসব অসৎ কর্মচারীদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নিতে পিডিবির হস্তক্ষেপ কামনা করছেন ভুক্তভোগী গ্রাহকরা।

এ বিষয়ে চাঁদপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ কেন্দ্রের (পিডিবির ) উপ-সহকারী প্রকৌশলী আতিকুল্লাহ প্রিয় সময়কে জানান, আমাদের লোকজন অন্য জায়গায় কাজ শেষ করে পাল পাড়ার ওই খুঁটিটি মেরামত করতে যাবে। টাকা উঠানোর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তা অস্বীকার করে বলেন, আমরা কারো কাছে টাকা চাইনি। টাকা চাঁদা দাবির বিষয়টি আমার জানা নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD