রাজধানীতে অকারণে রাস্তায় নামলেই জেল-জরিমানা

রাজধানীতে অকারণে রাস্তায় নামলেই জেল-জরিমানা

কাজি রাসেল ঢাকা

করোনা ভাইরাসে দিন দিন জনমনে আতঙ্ক বাড়ছে। তবুও স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে হরহামেশাই ঘুরে বেড়াচ্ছেন রাজধানীবাসী। তাই তাদের ঘরমুখি করতে রাস্তায় নামলেই জেরা, গাড়ি চালকদের জরিমানা করছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এদিকে ২৬ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত দেশে সাধারণ ছুটি বিদ্যমান রয়েছে। আজ রোববার থেকে নতুন করে কারো ঢাকায় ঢুকতে কিংবা বের হওয়ার সুযোগ থাকছে না। নির্ধরিত কারণ ছাড়া কেউ বাসা থেকে রাস্তায় নামলেই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জেরার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। পুলিশ বলছে, কোনো কারণ ছাড়া রাস্তায় নামলেই জেল জরিমানা করা হবে।

রোববার থেকে রাজধানীর বাড্ডা, সুবস্ত, গুলশান লিংকরোড, মালিবাগ, ফার্মগেট, মিরপুর, বিজয়নগর, পল্টন, খিলগাঁও, বাসাবো এলাকার প্রধান সড়কগুলোয় ঘনঘন চেকপোস্ট বসিয়ে জনসাধারণকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ। মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার কিংবা মাইক্রোবাস নিয়ে রাস্তায় নামলেই বাইরে বেরোনোর কারণ জানতে চাচ্ছেন পুলিশ সদস্যরা। কারণ না দেখাতে পারলেই চালকদের জরিমানার স্লিপ ধরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

মানুষকে সচেতন করতে শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল হাসান বলেন, ‘ঘরে থাকুন নিরাপদে থাকুন। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না। কারণ না দেখাতে পারলে জরিমানা করা হবে।’

খিলগাঁও থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, ‘করোনা যেন মহামারি রূপ না নিতে পারে, সেই লক্ষ্যেই মানুষকে বিনা প্রয়োজনে রাস্তায় নামতে নিষেধ করা হয়েছে। কিন্তু মানুষ নিয়ম মানতে চায় না। তাই এখন আমাদের জেল-জরিমানার দিকে যেতে হতে পারে।’

পুলিশ সদর দফতরের এআইজি মো. সোহেল রানা বলেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশ সারাদেশে করোনা বিস্তার রোধে কাজ করছে। পুলিশ নিশ্চিত করছে মানুষ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখছে কি না। তারা যেন নিজ গৃহে অবস্থান করুন। প্রয়োজন ছাড়া কেউ যেন ঘরের বাইরে না আসেন। বিশেষ করে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী জরুরি সেবার সাথে নিয়োজিত ব্যক্তিকে আমরা সহযোগিতা করছি। এছাড়া সাধারণ মানুষ যেন ঢাকার বাইরে না যান।’

‘বাইরে থেকে সাধারণ মানুষ ঢাকায় যেন প্রবেশ না করেন, এই বিষয় নিশ্চিত করতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সকল ইউনিট কাজ করছে। তাদের একার পক্ষে সম্ভব নয়। সবার সহযোগিতা চাই। করোনা রোধে আমরা আরো কঠোর হতে দ্বিধা করবো না। কেউ আবার রাস্তার পাশ ধরে হাটছেন। পুলিশি বাধা নানা অজুহাতে পার হয়ে যাচ্ছেন। তবুও ঘরের বাইরে যেন যেতে হবেই। রিকশা, সিএনজি অটোরিকশা রাস্তা দাপড়িয়ে বেড়াচ্ছে। অনেকে বিকেল হলেই রিকশায় ঘুরতে বেড়িয়ে পড়ছেন। এতে করে বাংলাদেশে করোনা ভয়াবহ রূপ নিতে পারে।’

তিনি যোগ করেন, ‘নাগরিকদের ঘরমুখো করতে পুলিশের তৎপরতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। কিন্তু তারপরও পুরোপুরি মানুষদের ঘরমুখো করা যাচ্ছিলো না। তাই করোনার বিস্তার ঠেকাতে সেনা বাহিনী কঠোরভাবে কাজ করছে।’

ডিএমপি কমিশনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম জানান, যৌক্তিক কারণ দেখাতে না পারলে বাইরে আসবেন না। বাসায় থাকুন। করোনা প্রতিরোধে সহযোগিতা করুন। নির্দেশ অমান্য করলে জেল-জরিমানা করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD