ব্রাজিলেও তৈরি হবে যুক্তরাজ্যের ভ্যাকসিন

ব্রাজিলেও তৈরি হবে যুক্তরাজ্যের ভ্যাকসিন

আন্তর্জাতিক ডেক্স

যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের তৈরি করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিনটি ব্রাজিলেও উৎপাদন করা হবে বলে জানিয়েছেন ব্রাজিলের জনস্বাস্থ্য বিভাগের দ্বিতীয় শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তি এলসিও ফ্রাঙ্কো।

তিনি বলেন, ব্রিটিশ ওষুধ কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকার সঙ্গে ১২৭ মিলিয়ন ডলারের একটি চুক্তি সই হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ব্রাজিল ভ্যাকসিনটির ৩ কোটি ডোজ তৈরি করবে। প্রথম দফায় ডিসেম্বরের মধ্যে অর্ধেক এবং দ্বিতীয় দফায় আগামী বছরের জানুয়ারির মধ্যে বাকি অর্ধেক ডোজ তৈরি হবে।

গত শুক্রবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) পক্ষ থেকে জানানো হয়, করোনাভাইরাসের যে কয়েকটি সম্ভাব্য ভ্যাকসিন এখন পরীক্ষাধীন রয়েছে এর মধ্যে অগ্রগতি বিবেচনায় নেতৃত্ব পর্যায়ে অর্থাৎ শীর্ষে রয়েছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরি অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই ভ্যাকসিনটি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী অ্যাস্ট্রাজেনেকা অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের তৈরি এই ভ্যাকসিনটি বৃহৎ ও মাঝারি পরিসরে ইতোমধ্যে মানবদেহে প্রয়োগ শুরু হয়েছে। এর উৎপাদনে বিষয়টি নিয়ে চলতি সপ্তাহে এগারোতম কোনো কোনো কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করেছে তারা।

এছাড়া বিশ্বের বৃহত্তম ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী কোম্পানি ভারতের পুনেভিত্তিক সিরাম ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক সুরেশ যাদব বলেছেন, ভ্যাকসিনটির কোটি কোটি ডোজ উৎপাদনের লক্ষ্যে তাদের কোম্পানির সঙ্গে অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন গ্রুপ ইতোমধ্যে একটি চুক্তি সই হয়েছে।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ওষুধ উৎপাদনকারী অ্যাস্ট্রাজেনেকার পরীক্ষামূলক এই ভ্যাকসিন প্রথম ভ্যাকসিন হিসেবে চূড়ান্ত ধাপে পৌঁছেছে। এটি কোভিড-১৯ থেকে মানুষকে কতটা কার্যকরভাবে সুরক্ষা দিতে পারে, তা পরীক্ষা করে দেখা হবে। দক্ষিণ আফ্রিকা ও ব্রাজিলেও এর পরীক্ষা করা হচ্ছে।

অক্সফোর্ডের এ ভ্যাকসিনটি তৈরিতে ব্যবহার হচ্ছে ‘সিএইচএডিওএক্সওয়ান’ ভাইরাস, যা মূলত সাধারণ সর্দিকাশির দুর্বল ভাইরাস (অ্যাডেনোভাইরাস) হিসেবে পরিচিত। এটি শিম্পাঞ্জিকে সংক্রমিত করে। গবেষকেরা এ ভাইরাসের জিনেটিক পরিবর্তন করেছেন, যাতে তা মানুষের ক্ষতি না করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD