শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় বীরত্বের বসুন্ধরা -ইমাউল হক পিপিত্রম

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় বীরত্বের বসুন্ধরা -ইমাউল হক পিপিত্রম

কক্সবাজার প্রতিনিধি

একই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে র সাবেক শিক্ষার্থীদের মধ্যে সম্পর্ক ভাল থাকে।ঐতিহ্য সংস্কৃতি ও শিক্ষা গ্রহণের নিয়ম নীতি এক থাকায় চেতনা আর নর্মস একই থাকে।সে ক্ষেত্রে nepotism কাজ করে ।প্রাতিষ্ঠানিক symmetry ভাল ফলাফল দেয়।

এই সংখ্যা বেশী হলে বা একই বছরের বা একই বিষয়ের বা একই ক্লাসের মধ্যেও ইজম কাজ করে ।আবার সবাই একই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া অবস্থায় কোন এলাকা ভিত্তিক ঐক্য গড়ে উঠে।

অনেক দুরে অনেকের মধ্যে যদি বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন সাবেক বা বর্তমান শিক্ষার্থীদের সাথে দেখা হয়ে তখন ভাল লাগে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্মৃতির কথা ,শিক্ষার কথা মনে পড়ে ।এই সাদৃশ্য কিন্ত একজন শিক্ষিত ব্যক্তিকে তৃপ্তি দেয়।
বা ঐ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র কে কোন জায়গার চাকরি করে ,দেশের প্রতি অবদান ইত্যাদি ইত্যাদি আলোচনায় আসে।

সেই 96 ,সিলেট সরকারি মহিলা কলেজে ভর্তি পরীক্ষা।কেমিক্যাল টেকনোলজি এন্ড পলিমার সায়েন্স এ অধ্যায়ন। সে এক ইতিহাস।
তখন ছাত্র সংখ্যা পাঁচ হাজার হয়ত। অনেক বড় ভাইদের ই সরাসরি চিনতাম। আমাদের আগে হয়ত গনিত ,পদার্থ ,অর্থনীতি বা রসায়ন বিষয় দিয়ে শুরু।
বিশ্ববিদ্যালয়ের দৃষ্টি নন্দন গেট দিয়ে এক কিলোমিটার রিক্সায় যেতে খুবই মজা। ক্যান্টিন আর সোনালী ব্যাংক ছাত্র সংসদ একই জায়গায়।
প্রকৃতির উপহার যেন টিলা।তার উপর শহীদ মিনার। বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম শাহজালাল আবার আর একটি হলের নাম শাহ পরান।
এ আর বি বিল্ডিং। লাইব্রেরি বিন্ডিং আর শিক্ষদের ক্যাফেটরিয়া আর পাশেই ছাত্র ক্যান্টিন। এ বিন্ডিং ছোট অডিটরিয়াম। যাতায়াত বাস চার কি পাচ টি।

CTP মুস্তাব ভাই ,তামিজ ভাই সাইফুল আলম,মোস্তাফিজ টিচার। বিধান মোশাররফ দেলোয়ার ভাই সহ অনেকেই বিদেশে।জয়নুল আবেদীন, আখতার হোসেন, মাকসুদ, রহমত উল্লাহ, ফজল স্যার কাশফী ম্যাডাম সালমা ম্যাডাম খুবই প্রিয়

রসায়ন এর বিজ্ঞানী খলিল স্যারের নিকট অনেক দিন আলোচনা করেছি।সামসুল আলম স্যার সহ অনেক ই ছিলেন সুপরিচিত।
ই ই পি সি ইউসুফ স্যার স্যার, আইপিই ইকবাল স্যার। গনিতের সাজেদুল করিম স্যার। আব্দুল আওয়াল বিশ্বাস স্যারের সাথে বন্ধুত্ব ই ছিল।

পরম শ্রদ্ধার পাত্র জাফর ইকবাল স্যারের সরাসরি ক্লাস করেছি একদিন আর বিশ বছর পরে কক্সবাজার এ একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গত বছর সালাম বিনিময়।
সাংবাদিক মেহেদী ভাই, ইমাম হাসান মুক্তি,সুজন ভাই, গাজীউল হক সোহাগ সহ আরো অনেক।

আর class mate বলি year mate বলি প্রায় 2/3 শত জনের নাম বলে দিতে পারব।আর আট বছর পড়েছি।আমরাই বেশীদিন থেকেছি। অভিজ্ঞতা আমাদের ই বেশী।তাই অনেক কিছুই মনে পড়ে।তা বলতে পারব একটানা আট ঘন্টা আর লিখতে কলম থামবে না আট দিনেও।

সে এক অ সমাপ্ত স্মৃতি।অ পুরনীয় তৃপ্তি।অতি মাত্র র আনন্দের ফি বছর ।সুখের সংগ।জ্ঞানের বিচরন।তারুণ্যের মেলা।যৌবনের পাঠশালা।রসদ সম্ভারের স্বাদ। বীরত্বের বসুন্ধরা। সংগ্রাম আর বিপ্লব শেখার রনাংগন। চরিত্র গঠনের সমান্তরাল আয়না।আচার গঠনের নিরপেক্ষ বিচারালয়। সংস্কৃতি চর্চার পরিপূর্ণ অনুষ্ঠান। শরীর গঠনের খোলামেলা র সীমাহীন মাঠ।আদর্শ তৈরির সু শৃংখল দরবার আলয়।নিজেকে উপস্থাপনের অন্যতম উদ্বোধন।দাঁড়ানোর উন্মুক্ত উপযুক্ত মঞ্চ।

যেখানে এখনও দাঁড়ানোর লোভ বিদ্যমান। যা এখনও স্মৃতির খাতায় সাজানো।কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত এ মাজেদ ও মেনহাজ দের সাথে দেখা। তারা আমাদের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী।স্মৃতির আড্ডা আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম মাত্র।

ইমাউল হক পিপিএম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD