চাঁদপুরে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত বেড়িবাঁধে ভাঙ্গন,হুমকির মুখে শহর রক্ষা বাঁধ

চাঁদপুরে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত বেড়িবাঁধে ভাঙ্গন,হুমকির মুখে শহর রক্ষা বাঁধ

এস আর শাহ আলম

চাঁদপুরে পদ্মা মেঘনা নদীর অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে অস্থায়ী সিআপি বাঁধের দুটি স্থান ভেঙে গেছে। প্লাবিত হয়ে পড়ছে চাঁদপুর সেচ প্রকল্প এলাকা ও শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। হটাৎ প্রচন্ড গতিতে মেঘনা নদীর পানি সেচ প্রকল্পের অভ্যন্তরে প্রবেশ করছে।
চাঁদপুর জেলা শহরের নতুঁন বাজার পুরানবাজার এর বাণিজ্যিক এলাকার দোকান পাট সহ বাসা বাড়িতে পানি প্রবেশ করেছে, কোথায়ও হাঁটু পরিমান কোথায়ও কোমর সমান পানি প্রবেশ করেছে, ফলে রাস্তা ঘাট তলিয়ে গেছে।

এছারা সদর,ইউনিয়ন সহ উপজেলা হাইমচর, ফরিদগঞ্জ মতলব দক্ষিন ও উত্তরের একই চিএ, এদিকে লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলা নিয়ে চাঁদপুর সেচ প্রকল্পের অবস্থান। বাঁধ ভেঙে যাওয়ার ঘটনায় কয়েক হাজার একর জমির ফসল এখন হুমকির মুখে।
অস্থায়ী বেড়িবাঁধ ভেঙে যাওয়ার খবর পেয়ে চাঁদপুর সেচ প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছেন ।

পূর্ণিমার প্রভাব দুদিন আগে কেটে গেলেও হঠাৎ বুধবার বিকাল থেকে দক্ষিণা বাতাস বইতে থাকে। ফুলে-ফেঁপে ওঠে পানি এতে বিকেলে জোয়ার শুরু হলে পানি বাড়তে থাকে।

সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় হাইমচর উপজেলার আলগী উত্তর ইউনিয়নের মহজমপুর এবং চর ভাঙ্গা এলাকায় অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে অস্থায়ী বন্যা নিয়ন্ত্রন বেড়ীবাঁধ ভেঙে যায়। এসময়ে প্রচন্ড গতিতে সেচ প্রকল্পের অভ্যন্তরে মেঘনা নদী থেকে পানি প্রবেশ করতে থাকে।
এই ঘটনায় স্থানীয় লোকজন অসহায় হয়ে পড়ে। উপায়ন্তর না পেয়ে চাঁদপুর সেচ প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের খবর দেয়।

পানি উন্নয়ন বোর্ড উপসহকারী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলম জানান আকষ্মিক এবং অস্বাভাবিক জোয়ারের ফলে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় হাইমচর মহজমপুর, চরভাঙ্গা স্থানে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ ভেঙ্গে সেচ প্রকল্প এলাকায় জোয়ারের পানি প্রবেশ করছে। ভাঙ্গন এলাকা বাঁধ নির্মানে আমরা জরুরী ব্যাবস্থা গ্রহন করছি।

এদিকে অস্বাভাবিক জোয়ারের পানি চাঁদপুর শহরে প্রবেশ করেছে। চাঁদপুর লঞ্চঘাট হাঁটু পানিতে তলিয়ে গেছে। শহরের পুরান বাজার, দাস পাড়া হরিসভা পালপাড়া মধ্যম শ্রীরামদী বৌ বাজার খালের দক্ষিনপাড় নতুঁন বাজার, মাদ্রাসা রোড, কোড়ালিয়া রোড, বঙ্গবন্ধু সড়ক, প্রফেসরপাড়াসহ নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ঘর বাড়ি,

উপজেলার ফসলী জমি, মাছের ঘের, ঝিল, পুকুর, ঘর বাড়ী হাট বাজার এবং বিভিন্ন সড়ক প্লাবিত হয়েছে। সব মিলিয়ে অস্বাভাবিক জোয়ারের পানি স্থায়ী হলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশংকা দেখা দিবে চাঁদপুর জেলায়।

তার সাথে শহর রক্ষা বাঁধে ধব্স নামতে পারে আবারো মেঘনার ছোবলে বৃলীন হতে পারে নদীর পারে থাকা বসত ভিটে সহ ব্যবসা প্রতিষ্টান, এদিকে নিজ ঘরের আসবাব পএ নিয়ে ঘর ছারতে শুরে করেছেন পানী বন্ধি মানুষ,

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD