বিগত ১৫ বছর পেরিয়ে গেলেও গ্রেনেড হামলাকারিদের বিচার হয়নি – শহীদ পরিবার

বিগত ১৫ বছর পেরিয়ে গেলেও গ্রেনেড হামলাকারিদের বিচার হয়নি – শহীদ পরিবার

এস আর শাহ আলম

২০০৪ সালের ২১ শে আগষ্ট বঙ্গ বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে পরিকল্পিত ভাবে ১১ টি গ্রেনেড বোমা নিক্ষেপ করে, কিন্য ভাগ্যের নির্মম পরিহাস হামলা কারিরা বুঝতে পারেনি, শেখ হাসিনা বাংলার মানুষের কাছে এক মমতা ময়ি মা, তিনি বঙ্গ কন্য হলেো দেশ ও জাতির নয়নের মনি যাকে হত্যা করা এত সহজ নয়, কেনো না তাকে বাঁচাতে বাংলার আপামন মানুষ রয়েছে যারা জীবন দিতে বুক পেতে দেয়,

ঠিক সেই দিন এক যুকে দেশ ব্যাপি বোমা হামলা চালিয়ে দেশ কে ধ্বংস করতে চেয়েছে যারা তারা সফল হতে পারেনি, সেইদিন ১১ টি গ্রেনেড বোমা হামলায় আই ভি রহমান সহ মোট ২৪ জন প্রাণ দিয়েছে মমতা ময়ি শেখ হাসিনাকে বাঁচাতে, যার মধ্যে ছিলো চাঁদপুর জেলার হাইমচর উপজেলার কেন্দ্রীয় সেচ্চা সেবক লীগের সদস্য মোঃ কুদ্দুস পাটোওয়ারী, ও মতলব উত্তর মোহন পুরের আতিকুর রহমান আতিক ছিলো শ্রমিক লীগের সদস্য, ২৪ জনের প্রাণের বিনিময়ে আর বহু নেতা কর্মিদের আহতের কারনে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দেশ রত্ন শেখ হাসিনাকে বোমা মেরে মারতে না পারায়, গাড়ি বহরে গুলি বর্ষন করেছিলো, তাতেও কোন লাভ হয়নি হামলা কারিদের,

এর পরে আওয়ামিলীগ সরকার ক্ষমতায় এসে ধারাবাহিক ভাবে সেই হামলার বিচার কার্যকর শুরু করে হামলাকারিদের বিচার করে, কিন্তু বিগত ১৫ বছর পেরিয়ে গেলেও নিহত শহীদ কুদ্দুস পরিবার ও নিহত শহীদ আতিক পরিবারের দুখ্য দেশ হয়নি, তারা এখনো শহীদদের মনে করে চোঁখের জ্বলে বুক ভাসাতে দেখা যায়, তারা আজও দাবী করেন, যারা বোমা হামলার নির্দেশ দাতা ও পরিকল্পনা কারি ছিলো তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে,

আজ ভায়ল সেই দিন ২০০৪ সালের ২১ শে আগষ্ট গ্রেনেড হামলার বর্বরচিত দিন, যাহা ভোলার, নয়, তারই চিএ তুলে ধরতে আমার এই সরজমিন প্রতিবেদক, হাইমচরের শহীদ কুদ্দুস পাটোওয়ারী পরিবার বর্গ কেমন আছেন বা শহীদ স্বরনে কি কি কর্যক্রম হাতে নিয়েছেন তাহা সরাসরি জানতে চাইলে শহীদ কুদ্দুস এর ভাই হাইমচর থানা আওয়ামিলীগের সহ সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সেচ্চা সেবক লীগের সদস্য মোঃ হুমায়ন পাটোওয়ারি বলেন, প্রতি বছর যেমন করে এই দিবসটি পালিত হয়েছে ঠিক তেমনি করে হবে, তবে এবার কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃ বৃন্দু আসবেন, সকালে শহীদ কুদ্দুস স্বরনে তার সমাধিতে ফুলের শ্রদ্ধাঞ্জলী নিবেদন শোক র ্যালী ও মসজিদে মিলাদ মাহফিল, এবং হাইমচর আওয়ামিলীগের পক্ষ থেকে শোক সভার আয়োজন করা হয়েছে।

তবে করোনা কালীন সময়ে আমরা স্বাস্হ্য বিধি ও দূরত্ব বজায় রেখে দিন ব্যাপি শোক কর্ম সূচি পালিত করবো, তবে তিনি আক্ষেপ প্রকাশ করে বলেন, আজ ১৫ বছর পেরিয়ে গেলো, কিন্তু বোমা হামলার পরিকল্পনাকারি ও নির্দেশ দাতাদের এখনো বিচার হয়নি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের দাবি তিনি যেনো তাদের খুজে বের করে আইনের আওতায় এনে কঠিন বিচার করেন, তাহলে শহীদদের আত্বা শান্তি পাবে।

তাছারা তিনি আরো বলেন, শহীদ কুদ্দুস স্বরণে আমরা শহীদ কুদ্দুস কল্যাণ ফাউন্ডেশন করেছি, এই করোনা কালীন সময়ে আমাদের ফাউন্ডেশন থেকে ত্রান বিতরণ করেছি, বন্য কবলীত মানুষদের পাশে দারিয়ে সামাজিক সকল কর্যক্রম করে আসছি, তবে সরকার যদি আমাদের ফাউন্ডেশনের প্রতি সু দৃষ্টি দেন তাহলে এই ফাউন্ডেশনের কার্যক্রম আরো গতি শীল হবে, পরিশেষে তিনি সকলের কাছে দোয়া কামনা করেন।

অপর দিকে মতলবের নিহত শহীদ আতিকের পরিবারের খোজ খবর নেয় না কেউ এমন মতামত প্রকাশ করলেন নিহতের পরিবার, তবে তারা দাবি করে নিহত আতিকের ছেলের একটি সরকারি চাকুরি হলে তাদের অভাব অনঠন দূর হবে ,,আজও আতিকের মার চোঁখে পানি টিপ টিপ করে ঝড়ছে, নিহতের মা বলেন আজ আমার ছেলে নেই, নাতি আর নাতনির মুখের দিকে তাকিয়ে এখনো বেঁচে আছি কোন রকম ডাল ভাত খেয়ে, নিহতের স্রী বলেন সরকারের কাছে আবেদন করেছি আমার ছেলের একটি চাকুরির জন্য, যদি ছেলের চাকুরি হয় তাহলে অভাব দুর হবে তাই আমরা আজকের দিনে এমন দাবি করছি,, মোহনপুর থানা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে শহীদ আতিক স্বরনে মসজিদে মিলাদ মাহফিল দোযার আয়োজন সহ শোক সভা পালিত হবে বলে জানা যায়,

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD