চাঁদপুরের চাঁদমুখ নায়ক ওয়াসিম আর বেঁচে নেই

চাঁদপুরের চাঁদমুখ নায়ক ওয়াসিম আর বেঁচে নেই

বিনোদন ডেক্স

চলচ্চিত্রের সোনালী দিনের চিত্রনায়ক ওয়াসিম আর নেই।
মৃত্যু কালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টায় রাজধানীর শাহাবুদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন এই নায়ক। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন। বেশ কিছুদিন ধরে গুরুতর অসুস্থ ছিলেন সুঅভিনেতা ওয়াসিম।
ব্রেন, নার্ভ ও হার্টের সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। অসুস্থ হওয়ার পর তাকে রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। কিন্তু কর্তব‌্যরত চিকিৎসকরা তাকে বাসায় নিয়ে যেতে বলেন। কারণ, দেশে করোনার যে পরিস্থিতি তাতে হাসপাতালে রাখা নিরাপদ নয়। এক সময় বাণিজ্যিক-অ্যাকশনের পাশাপাশি ফোক-ফ্যান্টাসি সিনেমার এক নম্বর আসনটি দখলে ছিল ওয়াসিমের।

১৯৭২ সালে ঢাকাই সিনেমাতে ওয়াসিমের অভিষেক হয় সহকারী পরিচালক হিসেবে ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’র মাধ্যমে। আর নায়ক হিসেবে তার যাত্রা শুরু হয় মহসিন পরিচালিত ‘রাতের পর দিন’ সিনেমার মাধ্যমে। দিন যতই যেতে থাকে ওয়াসিমের জনপ্রিয়তা ততই আকাশচুম্বী হয়। বাণিজ্যিক ঘরানার সিনেমায় অপরিহার্য নায়ক হয়ে ওঠেছিলেন তিনি।
তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে রয়েছে ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’, ‘রাতের পর দিন’, ‘দোস্ত দুশমন’, ‘দি রেইন’, ‘রাজদুলারী’, ‘বাহাদুর, ‘মানসী’, ‘সওদাগর’, ‘নরম গরম’, ‘বেদ্বীন’, ‘ঈমান’, ‘লাল মেম সাহেব’ ইত্যাদি। অনেক দিন ধরে সিনেমা থেকে দূরেই ছিলেন তিনি।
সবমিলিয়ে ১৫২টি ছবিতে অভিনয় করেছেন ওয়াসিম।
সত্তর ও আশির দশকে রাজা, রাজপুত্র বলতে চলচ্চিত্রপ্রেমীরা ওয়াসিমকেই কল্পনা করতেন। কালজয়ী এই অভিনেতা ১৯৫০ সালের ২৩ মার্চ চাঁদপুরের মতলবে জন্মগ্রহণ করেন। তার শিক্ষাগত যোগ্যতা ইতিহাস বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি।
মূলত ওয়াসিমের নেশা ছিল বডি বিল্ডিংয়ে। ১৯৬৪ সালে বডি বিল্ডিংয়ের জন্য ‘মিস্টার ইস্ট পাকিস্তান’ খেতাব অর্জন করেছিলেন ওয়াসিম।
সোনালী দিনের চিত্র নায়ক ওয়াসিমের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করছি এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। হে রাব্বুল আলামীন আপনি মরহুমকে জান্নাত বাসী করুন। আমীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD