কল্যাণ তহবিলে লভ্যাংশের ৩১ কোটি ৪০ লাখ টাকা দিল গ্রামীণফোন

কল্যাণ তহবিলে লভ্যাংশের ৩১ কোটি ৪০ লাখ টাকা দিল গ্রামীণফোন

কাজি রাসেল ঢাকা

ঢাকা: শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তাহবিলে গত এক বছরের লভ্যাংশ হিসেবে গ্রামীণফোন জমা দিয়েছে ৩১ কোটি ৪০ লাখ টাকা। এছাড়া অক্সিজেন কোম্পানি লিন্ডে বাংলাদেশ দিয়েছে এক কোটি ৬৩ লাখ টাকা।

বুধবার (৮ জুন) বিকেলে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের সঙ্গে গ্রামীণফোনের প্রধান মানবসম্পদ কর্মকর্তা সৈয়দ তানভির হোসেনের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের এক প্রতিনিধি দল সাক্ষাৎ করে ৩১ কোটি ৪০ লাখ টাকা চার হাজার ৪০৩ টাকার চেক হস্তান্তর করেন। পরে অক্সিজেন কোম্পানি লিন্ডে বাংলাদেশ এর মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান সাইকা মাজেদ তাদের কোম্পানির গত এক বছরের লভ্যাংশের এক কোটি ৬৩ লাখ টাকার চেক প্রতিমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।

এ সময় অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেন, গ্রামীণফোন তাদের লভ্যাংশের একটি নির্দিষ্ট অংশ বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিলে নিয়মিত জমা দিয়ে আসছে। এ তহবিলে সর্বোচ্চ জমাদানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে গ্রামীণফোন আজ পর্যন্ত ১৮৩ কোটি ৮৪ হাজার ৩৬৩ টাকা জমা দিয়েছে।

করোনার এ সময়ে গত এক বছরে প্রায় প্রাতিষ্ঠানিক ও অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে কর্মরত ৩ হাজার ২৬৯ জন শ্রমিককে চিকিৎসা সহায়তা বাবদ নয় কোটি ৯৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা, কর্মরত অবস্থায় মৃত ৯২ জন শ্রমিকের পরিবারকে ৩৯ লাখ ২০ হাজার টাকা, শ্রমিকদের সন্তানের শিক্ষা সহায়তা বাবদ ১৬৬ জনকে ৫২ লাখ ৮৫ হাজার টাকা সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে সংঘটিত দুর্ঘটনায় ১৫ জন আহত শ্রমিকসহ মোট ২৬ জন শ্রমিককে জরুরি চিকিৎসা সহায়তা বাবদ ১২ লাখ ১৫ হাজার টাকা এবং সাত জন নিহত শ্রমিকের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা বাবদ ১৪ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে।

এ তহবিল নিয়ে শ্রমিকদের কল্যাণে শ্রম মন্ত্রণালয় সবসময় শ্রমিকদের পাশে আছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
অনুষ্ঠানে গ্রামীণফোনের প্রধান মানবসম্পদ কর্মকর্তা করোনাকালীন দেশের মানুষের পাশে থাকার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান আরও বলেন, গ্রামীণফোনসহ দেশী-বিদেশি এবং বহুজাতিক মিলে ১৭৬টি প্রতিষ্ঠান তাদের লাভের এক দশমাংশ নিয়মিত এ তহবিলে জমা দিয়ে আসছে। বর্তমানে এ তহবিলে জমার পরিমাণ ৫০০ কোটি টাকার ওপরে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব কে এম আব্দুস সালাম, বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক বেগম জেবুন্নেছা করিম, শ্রম অধিদপ্তরের মহাপরিচালক গৌতম কুমার ভৌমিক, গ্রামীণফোনের পাবলিক অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স প্রধান হোসেন সাদাত, এইচআর বিজনেস পার্টনার অ্যান্ড সার্কেল প্রধান ইয়াসির মাহমুদ খান, ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিলেশনস প্রধান কে এম সাব্বির আহমেদ এবং গ্রামীণফোনের ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিলেশনস বিভাগের সদস্য মো. আসাদুজ্জামান এবং লিন্ডে বাংলাদেশ এর রেওয়ার্ড অ্যান্ড সিস্টেম ম্যানেজার সুফিয়া আকতার ওহাব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD