একজন আহসান হাবীবের করোনা ও মৃত্য যাত্রা!

একজন আহসান হাবীবের করোনা ও মৃত্য যাত্রা!

নিউজ ডেক্স

মাঝ রাত্রে এলোমেলো লাগল ! বুঝতে পারলাম হারাধনের কিছু একটা হল। আগে একটা বনে বাঘ তাড়াতে গিয়ে ,,, । তারপর একটা,,,,, ঘরে ,,,,,,, রাখতে গিয়ে,,,,,।তারপর হাসপাতালে র পাতাল রক্ষায় ,,,।আজ তত্বাবধানে র তথ্য ও তত্তের দত্তক হয়ে দর দামে ব্যর্থ হয়ে ধরা ধাম ত্যাগ করলেন এপিবিএন রাঙামাটির মেধাবী অফিসার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আহসান হাবিব। করোনার ছবলে মারা গেলেন তিনি।

জাতীর সুযোগ্য, সাহসী, বীরত্বে ভরা বীর, মানবতায় ভরা শির,দলের এক জন চলে গেলেন। শেষ যাত্রার যাত্রী হয়ে। “শহীদ “এর মর্যাদা দান করুন মহান আল্লাহ্।

তাঁর ছেলে হয়ত বাবা ঈদের জামাত নিয়ে বাড়ী আসবে বলে অপেক্ষা করেছিল। এখনও বুঝতে পারছে কি হয়েছে!
তাঁর ছেলে মেয়ে হয়ত ঈদের ছুটিতে বাড়ী আসবে কিনা বার বার জানতে চেয়েছে। তারা নতুন কাপড়ের অপেক্ষা য় হয়ত বসে । বৃদ্ধ পিতার ঘারে বীর সন্তানের লাশের বোঝ যেন পৃথিবীর সম ওজন ।

তিনি হয়ত ঈদের বোনাস তুলে ভাগ ভাগ করে রেখেছিলেন সন্তানদের জন্য খেলনা কিনবেন বলে।বাবার জন্য পান্জাবি আর মায়ের জন্য শাড়ী কেনার টাকা দিয়ে কিনতে হবে কাফনের কাপড়।হৃদয় বিদারক বিদায়। সব হারানো শব যাত্রা।শিকড় হারানো গাছের পাতা ঝড়া।

।তাঁকে আর এপিবিএন নিয়ে দৌড়াতে হবে না ।জাতীকে রক্ষা দিতে প্ররক্ষা বিভাগ তো দৃরে থাক এহকাল থেকে ছুটি পেয়ে গেলেন।তার যাত্রা বাবার বসত বাড়ীর পাশে ই কোন কবর পর্যন্ত।

ছেলেকে হয়ত বলতে হবে না গত ঈদে ছুটি পাইনি , পালা মতে এ ঈদে ছুটি আসব।তাঁর স্ত্রী র অবস্থা শোচনীয় ,হাসপাতালের বেডে।বিধতার খেলা। সাদা শাড়ী পরে স্বামীর শব যাত্রার দৃশ্য দেখার ভাগ্য ও নেই।সন্তান রা যে পিতৃ শোকে মায়ের আঁচল ধরে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদবে, সে সুযোগ ও বাসনার বসুন্ধরা দিল না।

এর কোন উত্তর নেই !রক্তের রক্ত হয়ত এক নজর দেখতেও পারবে না।তাঁর কবর যাত্রা য় আপন কেউ হয়ত যেতেও পারবে না।দফায় দফায় চেপে চেপে কান্না র শব্দও প্রকাশ করা কঠিন হবে!

মৃত্যু হবেই।তাই বলে ,,,,?ক্রন্দন রোল আকাশে বাতাসে যেতে দেবে না। আহসান হাবিব, নাজির জসিম আশিক শাহজাহান তো ছিল আমাদের পুলিশ পরিবারের সদস্য। মানে শক্তি, ভিত্তি। কিভাবে দিনে দিনে কমছে ! ঐ বিদেশ থেকে যদি,,,,,, না আসত?যদি এসেও ,,,,,, ,ঘরে থাকত ?যদি ,,,,,, ছুটি তে ,,,,,না যেত ?যদি ঐ ,,,,,, গুলো রাষ্ট্রীয় আইন মেনে চলত।
তাহলে হয়ত এমন মৃত্যু হতো না ।মানুষের মৃত্য হত তবে সেটা স্বাভাবিক মৃত্যু।।শহীদ দের এ মৃত্যু শোকে আমারা হয়ত শক্তি পেলাম।কিন্তু যার গেলো তার তো পুরো টাই গেল ।

শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD