বীরভূমে বীরের প্রস্হান – বীরত্বের প্রতি সম্মান- ইমাউল হক পিপিএম 

বীরভূমে বীরের প্রস্হান – বীরত্বের প্রতি সম্মান- ইমাউল হক পিপিএম

কক্সবাজার  প্রতিনিধি

দুপুরের খাবার সময় গলায় কাটা বিঁধলে, বুঝতে পারলাম হারাধনের কিছু একটা হল। আগে একটা বনে ,,,,, তাড়াতে গিয়ে ,,, । তারপর একটা,,,,, ঘরে ,,,,,,, রাখতে গিয়ে,,,,,।তারপর হাসপাতালে র পাতাল রক্ষায় ,,,।

আজ মাদক উদ্ধার করে মাদক ব্যবসায়ীর ছুরিকাঘাতে
মৃত্যুর কাছে ব্যর্থ হয়ে ধরা ধাম ত্যাগ করলেন কুড়িগ্রামের চন্দ্র পাড়া গ্রামের বীর সৈনিক দেশপ্রেমিক পুলিশ অফিসার পেয়ারুল।

জাতীর সুযোগ্য সন্তান, তিনি খুবই সাহসী, বীরত্বে ভরা বীর, মানবতায় ভরা শির। শোক বলে বলীয়ান মোরা । “শহীদ “এর মর্যাদা দান করুন মহান আল্লাহ্।

স্কুল মাষ্টার মন্টু চাচার বড় ছেলে পেয়ারুল। হাম্মাম, আব্রাহাম আমাদের ভাতিজা ।এত গুলো চাচা কে তারা কোন দিন দেখেনি। চিন্তাও করেনি।অন্য কোন ভাতিজা দের কপালে যেন এত সংখ্যক পুলিশ চাচাদের দেখার দিন না আসে।

পেয়ারুলের শিশু ছেলে দুই জন হয়ত বাবা চকলেট নিয়ে বাড়ী আসবে বলে অপেক্ষা করেছিল। বা পুলিশ চাচা রা খাওয়ার কিছু আনবে বলে ভাবছে।কিন্ত কফিনে মোড়ানো পেয়ারুলের নিথর মৃতদেহ নিয়ে বৃদ্ধ পিতার ঘাড়ে দেওয়া ছাড়া আর কি করার!পিতার ঘাড়ে পুত্রের লাশের ওজন সে যে পৃথিবীর ওজনের ও বেশী। পৃথিবী এমনই উপহার দিল হাম্মাম আর আব্রাহাম কে যে তারা এখনও বোঝেও না তার বাবার
কি হয়েছে।হায়রে নিয়তি!মাদক ব্যবসায়ীর ছুরিকাঘা তে পুলিশ অফিসারের মৃত্যু !মাদক ব্যবসায়ীর দৌরাত্ম্য, সাহস, বুকের পাটা,কলিজার বাহাদুরী!!
কি জবাব হবে হাম্মাম আর আব্রাহাম এর কাছে?কে প্রস্তুত করবে?কি ধরনের জবাব হবে ?

পেয়ারুলের মাসুম বাচ্চাদের কবরে র পাশে খেলার দৃশ্য সবার ই নিজের কথা মনে করিয়ে দেয় ।চোখে অশ্রু ছাড়া আর কি দেওয়ার আছে ।সে চিন্তা করেই
হুতুমপ্যাচা হয়ে বসে আছি।

পেয়ারুলের স্ত্রী হয়ত ততক্ষণে সাদা শাড়ি পড়ে বার বার মূর্ছা। বৃদ্ধ পিতার ঘারে বীর সন্তানের লাশের বোঝা যেন পৃথিবীর সম ওজন ।এ দৃশ্যের দৃশ্যায়ন কত বার !কতক্ষন!

অনেক সহকর্মীর ভাগ্য হবে না প্রিয় সহকর্মীর শব যাত্রা য় যাত্রী হওয়া।

পেয়ারুল কে আর থানার রিপোর্ট নিয়ে দৌড়াতে হবে না ।জাতীকে রক্ষা দিতে প্ররক্ষা বিভাগ তো দৃরে থাক এহকাল থেকে ছুটি পেয়ে গেল সে ।তার যাত্রা রংপুর থেকে কুড়িগ্রামের চন্দ্রপাড়া র পাশে ই কোন কবর পর্যন্ত।
ছেলেকে হয়ত বলতে হবে না গত ঈদে ছুটি পাইনি পালা মতে এ ঈদে ছুটি আসব।স্ত্রীকে কুড়িগ্রামের কুঁড়ি আঁকা লাল শাড়ি পড়ে বাসের আগমনের জন্য অপেক্ষা করতে হবে না।কিন্তু!রক্তের রক্ত হাম্মাম আর আব্রাহাম।দফায় দফায় চেপে চেপে কান্না র শব্দও প্রকাশ করতে পারবে না।তাদের তো পুরাটাই গেল !

মৃত্যু হবেই।তাই বলে ,,,,?ক্রন্দন রোল আকাশে বাতাসে যেতে দেবে না। পেয়ারুল মানে শক্তি, দেশপ্রেমের ভিত্তি ,মাদকের জম । কিভাবে দিনে দিনে কমছে !
এভাবে মাদক ব্যবসায়ীর কাছে ?বখাটে দের কাছে?

এর বিহীত হয়ত হবে।কিন্ত আমাদের ও সতর্ক হতে হবে।ভবিষ্যত আরো শক্ত, ও প্রস্তুত হতে হবে।
“শহীদ ‘দের এ মৃত্যু শোকে আমারা হয়ত শক্তি পেলাম,গর্বিত পুলিশ বাহিনী ।তার হত্যাকারীর ও হয়ত ,, ,,, ,, ,,হবে ।কিন্তু যার গেলো তার তো পুরো টাই গেল।ছয় বছরের হাম্মাম, দুই বছরের আব্রাহাম দের তো “”বাবা আর কোন দিন ঈদের জামা আনবে না””

তবুও পুলিশের কনিষ্ঠ অফিসার পেয়ারুল কে কুর্নিশ, সালাম, স্যালুট। তার মৃত্যু একজন সফল যোদ্ধার।বীরবেশে প্রস্হান হয়েছে একজন স্কুল শিক্ষকের সঠিক শিক্ষা পাওয়া সন্তানের।

“””শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।”””

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD