বরিশাাল নগরীর সোনামেয়ার পোলস্ত সাগর-টুম্পা দম্পতির সংসারে ভাঙ্গন★

বরিশাাল নগরীর সোনামেয়ার পোলস্ত সাগর-টুম্পা দম্পতির সংসারে ভাঙ্গন★

খান – আরিফ বরিশাল

৪ লাক্ষটাকা আত্মসাত করে স্ত্রীকে রেখে স্বামী লাপাত্তা
টুম্পা বেগম সাংবাদিকদের জানায়। আমি বিগত দিনে ঢাকায় গার্মেন্টসে কাজ করি ,কাজ করা অবস্থায় আমি চার লক্ষ টাকা জমাই ডিপিএস এর মাধ্যমে, সেই টাকার খবর পেয়ে আমার স্বামী সাগর হাওলাদার , এবং আমার শ্বশুর ইউনুস হাওলাদার ,ও আমার শাশুড়ি নুরজাহান পারভীন ,এরা সবাই মিলে আমার কাছে সেই টাকা চায় ,আমি সেই টাকা দিতে ইচ্ছুক না থাকায় আমার উপরে অমানুবিক নির্যাতন চালায় পরিবারের সকলে ,একপর্যায়ে আমি নির্যাতন সহ্য না করতে পেরে আমার জীবনের সমস্ত উপার্জন তুলে দেই প্রান প্রিয় স্বামী সাগরের কাছে । টাকা দেয়ার পরে এক-দেড় মাস ভালই কাটে । কিন্তু চোর না শোনে ধর্মের বানী। কয়েক মাস না যেতেই, শুরু হয় অমানুবিক নির্যাতন।

টুম্পার ভাষ্যমতে তার জমানো টাকা দিয়ে স্বামীর ভিটায় ঘর তৈরি করে শ্বশুর বাড়ির লোকজন। কিন্তু ঘরদোর তৈরি হলেও একটি নীশিও শান্তিতে কটেনি টুম্পা দম্পতির! মারধোর চুরির অপরাধ উষ্ঠা লাথি কোনটিই বাধ যায়নি অসহায় রমনির।
একপর্যায়ে সে বাধ্যহয়ে সদর থানায় অভিযোগ দেয় টুম্পাবেগম। কিন্তু ভিন্ন বিভাগের লোক হবার করনে টুম্পার পক্ষে সেদিন পুলিশ প্রশাসন সহ কোন হিতৈশী এগিয়ে আসে নি তাঁর পাসে। সে যাত্রায় বেঁচে যায় স্বামী সাগর সহ তার পরিবারের লোকজন।
সাম্প্রীতিক কালে শ্বাশুরি নুরজাহানের চক্রান্তে আবারো তার পুত্র সাগর টুম্পাকে রেখে অন্যত্র পগারপাড়ি দেয় বলে যানান সেখানকায় থাকা একাধিক নির্ভরযোগ্য লোকজন। স্কুল শিক্ষক আবুবকর সিদ্দিক জানান, টুম্পার ৩/৪ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেছে তার স্বামী ও তার পরিবার বর্গ।

গতকাল এ রিপোর্ট লেখার আগ পর্যন্ত সাগর দম্পতি টুম্পা জানায়, আমি পুরো বিষয়টি ধানায় জানিয়েছি। কোতয়ালী মডেল থানার জনৈক উপ-পুলিশ পরিদর্শক জানান, আমরা একটা অভিযোগ পেয়েছি এর তদন্ত চলছে। অভিযোগের সত্ততা পেলে আইনের আওতায় এনে অপরাধিকে শাস্তি দেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by ALL IT BD